Piles (Haemorrhoids) during Pregnancy

Piles represent enlarged or swollen veins in or around the rectum. The medical term for piles is haemorrhoids. They are in fact, swellings containing blood vessels with supporting tissues around the lower end of rectum and the anal canal.


Piles or haemorrhoids are normal component of human anatomy– they are cushions that help maintain continence of faeces. However, they would be commonly called piles when they become symptomatic; bleeding from the rectum, prolapsing through the anus at various degrees and other associated symptoms such as itching, aching, soreness or swelling around the anus, pain when passing stool and mucus discharge, lump protruding outside the anus, requiring to be pushed back in after passing a stool and bleeding usually of bright red colour.

Piles are more common in pregnancy as the pregnancy hormones make smooth muscles of the piles and its veins relax. As already mentioned piles is not unique to any particular pregnant mother and mothers should not feel shy or should not hesitate to seek advice if and when required.

They might be painful, itchy or uncomfortable, the lumpiness may be felt around the bottom. Going to the toilet can be uncomfortable –individuals might feel as though they haven’t fully emptied their bowels and there might be some discharge of mucus. They can also bleed – it’ll look fresh and red, usual for blood originating in the piles.

It is important to check with the doctor or the midwife if a pregnant mother notices blood in her bowel movements, Though, bright fresh blood in majority cases are due to piles or blood can be due to other benign conditions like anal fissure or the bleeding may herald the onset of other sinister diseases such as cancer.

Pregnant mothers won't necessarily get all of the symptoms of piles– symptoms would depend on how badly affected the piles are. Try eating smaller portions of food more frequently during the day, rather than large meals, as this eases the strain on your digestive system.


Treatment of piles:


  • Follow my advice on food habit and life-style changes to avoid or combat constipation

  • Apply intermittent cold/iced compresses

  • Have warm soothing bath. everyday

  • Avoid rubbing the piles with dry tissues, pat with soft wipes instead.

  • Try to take away the weight from the piles by sitting on a comfortable rubber ring, by avoiding standing or sitting still for too long,


In summary, Constipation can cause piles. If this is the case, try to keep the stools soft and regular by eating plenty of food that's high in fibre; wholemeal bread, fruit and vegetables. Drinking plenty of water can help, too. Avoid standing for long periods, take regular light exercise to improve circulation of blood in the body, use a cloth wrung out in iced water to ease the pain – hold it gently against the piles. If the piles stick out, push them gently back inside using a lubricating jelly, avoid straining to pass a stool, as this may make the piles worse, after passing a stool, clean the anus with moist toilet paper instead of dry toilet paper, gently pat, rather than rub, the area.

There are medicines that can help soothe the inflammation around the anus. These treat the symptoms, but not the cause, of piles.


It is prudent to seek advice from the doctor or the midwife and avoid using a cream or medicine without checking with them first.

RAHETID Pregnancy.jpeg

গর্ভকালীণ মায়েদের পাইলস্ বা হিমোরয়েডস্

পাইলস্ বা হিমোরয়েডস্ পায়ুপথ ও মলাশয়ের শেষ অংশে অবস্থিত গদি বা বালিশের ন্যায় রক্তনালী সমৃদ্ধ স্ফীত অংশ, যা পায়ুপথ দিয়ে মল নির্গমণ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। যদিও সব মানুষের স্বাভাবিক দেহের অংশ, শুধুমাত্র উপসর্গ দেখা দিলেই ঐ স্ফীত রক্তনালী সমৃদ্ধ অংশগুলিকে পাইলস্ বা হিমোরয়েডস্ বলা হয়ে থাকে। যদিও পাইলস্ এর উপসর্গ যে কোন মানুষের হওয়া সম্ভব গর্ভকালীন মায়েদের গর্ভকালীন হর্মণের প্রভাবে পাইলস্ হবার সম্ভাবনা অনেক বৃদ্ধি পায়, অনেক ক্ষেত্রেই পায়ুপথের বাইরে বেরিয়ে আসে এবং জটিলতার সম্ভবনা বহুলাংশে বেড়ে যায়।


পাইলসের যে সকল উপসর্গ লক্ষণীয়:

পায়ুপথে রক্ত যাওয়া সাধারণত টকটকে লাল, চুলকানি, বেদনা, জ্বালা অথবা পায়ুপথের চারিধারে ফোলা, মলত্যাগের সময়ে পায়ুপথে ব্যাথা অনুভব করা এবং মলত্যাগের পর শ্লেষা নির্গমণ, এক বা একাধিক পাইলস্ পায়ুপথের বাইরে বেরিয়ে আসা যেগুলি স্বতস্ফূর্ত ভাবে মলত্যাগের পর পায়ুপথের মধ্যে ফিরে যায় অথবা চাপ দিয়ে ভিতরে পৌছে দিতে হয়। অনেক ক্ষেত্রে পাইলস্ গুলো সব সময়ে বাইরেই অবস্থান করে।

কৌষ্টকাঠীন্য পাইলসের উপসর্গ সৃস্টি করে ও বৃদ্ধি করে এবং তাই কৌষ্টকাঠীন্য পাইলসের সাথে থাকলে তার চিকিত্সা অত্যন্ত জরুরী। ঔষধের মাধ্যমে চিকিৎসার পূর্বে অথবা পাশাপাশি কৌষ্টকাঠীন্য ও পাইলসের  উপসর্গ পরিহার করতে আমি সকল সময়ই স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভাস অনুসরন এবং সহজে অনুকরন যোগ্য জীবন-পদ্ধতি পরিবর্তনের উপদেশ দিয়ে থাকি। এই উপদেশসমূহ গর্ভকালীন কোষ্ঠকাঠিন্য এবং পাইলস্ থেকে ত্রাণ পেতে সাহায্য করে।এই উপদেশ সমূহ আমি পূর্বেই কোষ্ঠকাঠিন্য সম্পর্কে আলোচনার সময় বিশেষ ভাবে উল্লেখ করেছি।


গর্ভকালীন সময়ে বেশীক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকা অথবা টয়লেটে বেশী সময় বসে থাকা সমীচীন নয়।অনেক সময় কাপড় বরফযুক্ত পানিতে ভিজিয়ে খুব হাল্কা ভাবে পাইলসে চেপে রাখলে আরাম পাওয়া যেতে পারে। পাইলস্ বেরিয়ে আসলে সাবধানতার সাথে পিচ্ছিল লুবরিকেন্ট জেলি দিয়ে ভিতরে ঢোকানোর চেস্টা করতে হবে।মলত্যাগের সময় অযথা চাপ বা কোঁত দেওয়া পরিহার করতে হবে।মলত্যাগের পর শুষ্ক কাগজের পরিবর্তে ভেজা কাগজ দিয়ে হাল্কা ছোয়ার মাধ্যমে পরিস্কার করতে হবে। পাইলস্ ফুলে বা বেরিয়ে থাকলে ওমা গরম পানিতে পাইলস্ ডুবিয়ে বসলে অনেক সময় আরাম লাগতে পারে।


পাইলসের উপসর্গ বেশী হলে ডাক্তার বা মিডওয়াইফের সাথে পরামর্শ করে প্রদাহনাশক ক্রিম বা অয়েন্টমেন্ট ব্যাবহার করতে পারা যাবে।ডাক্তার বা মিডওয়াইফের সাথে পরামর্শ ছাড়া কোন ওষুধ ব্যাবহার করা উচিত হবে না। জীবন সংকটময় জটিলতা না হলে গর্ভকালীন সময়ে সার্জারী বা শল্যচিকিতসা পরিহার করা হয় কারণ বাচ্চার জন্মের পরে সাধারণত পাইলস্ উপসর্গের উন্নতি হয়। বাচ্চা জন্মের পর যাদের গর্ভাবস্থায় পাইলস্ ছিল তাদেরকে ডাক্তারের অথবা মিডওয়াইফের কাছে পূনর্পরামর্শ গ্রহন করা উচিত।